ফেনীসারাদেশ

জাল ভোটে এমপি হতে চাই না : নিজাম হাজারী

নগর খবর ডেস্ক : ফেনী-২ আসনে নৌকার প্রার্থী ও বর্তমান সংসদ সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারী বলেছেন, ৭ জানুয়ারি ভোটাররা কেন্দ্রে গিয়ে নিজেদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দেবে। আমাকেই ভোট দিতে হবে এমন কোনো কথা নেই। আমি জাল ভোটে এমপি হতে চাই না। জনগণের ভোটে এমপি হতে চাই।

বুধবার (২৭ ডিসেম্বর) দুপুরে সদর উপজেলার ধলিয়ায় নির্বাচনী গণসংযোগকালে এসব কথা বলেন তিনি।

নিজাম হাজারী বলেন, এই আসনে আমিসহ আটজন প্রার্থী রয়েছে। তারা স্বতঃস্ফূর্তভাবে নিজেদের নির্বাচনী কার্যক্রম পরিচালনা করছে। কোথাও কোনো বাধার সম্মুখীন হচ্ছে না। আগামী ৭ জানুয়ারি পর্যন্ত তারা প্রত্যেকে তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যেতে পারবে। ভোটাররা যেন কেন্দ্রে গিয়ে স্বতঃস্ফূর্তভাবে নিজেদের ভোট প্রদান করতে পারে সেজন্য আমাদের দলীয় নেতাকর্মীদের বলে দেওয়া হয়েছে।

বক্তব্যে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, অতীতে যে কোনো নির্বাচন আসলেই একটি গোষ্ঠী এখানকার সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বিভিন্ন ধরনের ভয়-ভীতি দেখাতো। তবে এখন আমি যতদিন বেঁচে আছি সেই কাজটি আর কেউ করতে পারবে না।

নির্বাচনে জয়লাভ করলে অসমাপ্ত কাজ শেষ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করে নিজাম উদ্দিন হাজারী বলেন, আপনাদের কাছে আজ শূন্য হাতে এসেছি। আমার আজ দেওয়ার কিছু নেই। তিনি যদি নৌকা প্রতীকে তৃতীয়বারের মতো এমপি নির্বাচিত করেন, তাহলে ফেনী সদর আসনের সকল অসমাপ্ত কাজ সম্পন্ন করব।

এদিন সকাল থেকে সদর উপজেলার ধলিয়া ইউনিয়নের মোল্লার তাকিয়া, বালুয়া চৌমুহনী, ধলিয়া বাজার, সোমবারিয়া বাজার, বাগেরহাট, সাইনবোর্ড ও আল হুমায়েরা মাদরাসা মাঠ এলাকায় পথসভা ও গণসংযোগ করেন নিজাম হাজারী। এ সময় নৌকা প্রতীকে ভোট দেওয়ার জন্য সবার প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

এ সময় ফেনী সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি করিম উল্ল্যাহ বিকম, সাধারণ সম্পাদক শুসেন চন্দ্র শীল, ধলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার আহমদ মুনশীসহ দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ফেনী-২ আসন থেকে তিনি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তিনি। ২০১৮ সালের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে আবারও সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ফেনী-২ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হয়ে হ্যাট্রিক করেছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন হাজারী।

Back to top button