জাতীয়

যাত্রী কল্যাণ সমিতির প্রতিবেদন অতিরঞ্জিত : বিআরটিএ চেয়ারম্যান

নগর খবর ডেস্ক : সদ্য বিদায়ী ২০২৩ সালে সারা দেশে ৬ হাজার ২৬১টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৭ হাজার ৯০২ জন নিহত ও ১০ হাজার ৩৭২ জন আহত হয়েছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি। তাদের এই প্রতিবেদনকে অতিরঞ্জিত বলে মন্তব্য করেছেন রাষ্ট্রীয় পরিবহন নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটির (বিআরটিএ) চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মজুমদার।

মঙ্গলবার (১৬ জানুয়ারি) রাজধানীর বনানীতে বিআরটিএর প্রধান কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন তিনি। বাংলাদেশ জাতীয় কল্যাণ সমিতির বিরুদ্ধে লিগ্যাল অ্যাকশনে যাবেন বলেও হুঁশিয়ারি দেন বিআরটিএর চেয়ারম্যান।

নুর মোহাম্মদ মজুমদার বলেন, ২০২৩ সালে বিআরটিএর রিপোর্ট অনুযায়ী ৫ হাজার ৪৯৫টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৫ হাজার ২৪ জন নিহত, বাংলাদেশ পুলিশের রিপোর্ট অনুযায়ী ৫ হাজার ৯৩টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৪ হাজার ৪৭৫ জন নিহত, রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের রিপোর্ট অনুযায়ী ৬ হাজার ৯১১টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৬ হাজার ৫২৪ জন এবং বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির রিপোর্ট অনুযায়ী ৬ হাজার ২৬১টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৭ হাজার ৯০২জন নিহত হয়েছে। সুতরাং এ তথ্য থেকে প্রতীয়মান হয়, সরকারি ও বিভিন্ন বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের তুলনায় বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির রিপোর্ট অতিরঞ্জিত।

তিনি বলেন, বিআরটিএর সংগৃহীত সড়ক দুর্ঘটনার তথ্য নিয়মিত বিআরটিএর ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হচ্ছে। বিআরটিএর বর্ণিত তথ্যের বাইরে অন্য কোনো তথ্য পাওয়া গেলে বা কোনো অসংগতি থাকলে তা বিআরটিএকে অবহিত করার জন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে অনুরোধ করা হয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতিসহ কয়েকটি বেসরকারি সংস্থার প্রকাশিত তথ্য বিআরটিএর তথ্যের সঙ্গে অমিল থাকা সত্ত্বেও বিআরটিএকে এ বিষয়ে কোনো কিছু অবহিত করা হয়নি। এতে তাদের প্রকাশিত সড়ক দুর্ঘটনার পরিসংখ্যান নিয়ে জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে।

Back to top button