এক হাজার কিডনি প্রতিস্থাপন করেছেন যিনি » নগর খবর
  1. jahid.raj24@gmail.com : Jahid :
  2. mamun@gmail.com : mamun :
  3. ms2120524@gmail.com : Mridul :
  4. nogorkhobor@gmail.com : nogorkhobor@admin :
  5. parish@gmail.com : parish :
  6. parvaje01842@gmail.com : নগর ডেস্কঃ :
  7. rumonahamed442@gmail.com : Rumon Ahamed : Rumon Ahamed
  8. sagor.hosaain2@gmail.com : sagor.hasaain :
এক হাজার কিডনি প্রতিস্থাপন করেছেন যিনি » নগর খবর
বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৫:৫৭ অপরাহ্ন
নগর খবর শিরোনামঃ

এক হাজার কিডনি প্রতিস্থাপন করেছেন যিনি

  • নগর ডেস্ক
    নগর খবর
    আপডেটের সময় : বুধবার, ১০ নভেম্বর, ২০২১

এক হাজার কিডনি প্রতিস্থাপনের মাইলফলক ছুঁয়েছেন অধ্যাপক ডা. কামরুল ইসলাম ও তার প্রতিষ্ঠান শ্যামলীর সিকেডি অ্যান্ড ইউরোলজি হাসপাতাল। গরিব রোগীদের কমমূল্যে কিডনি প্রতিস্থাপনের লক্ষ্য নিয়ে ২০১১ সালে এ প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তোলেন ডা. কামরুল ইসলাম।

করোনাকালেও বন্ধ ছিল না কিডনি প্রতিস্থাপনের কার্যক্রম। অতিমারির দেড় বছরে তিন শতাধিক কিডনি প্রতিস্থাপন সফলভাবে করা হয়েছে। বর্তমানে প্রতি সপ্তাহে চারটি করে কিডনি প্রতিস্থাপন করা হচ্ছে এ হাসপাতালে।

অধ্যাপক ডা. কামরুল ইসলাম ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের ৪০তম ব্যাচের শিক্ষার্থী ছিলেন। তার বাবা আমিনুল ইসলাম স্বাধীনতা যুদ্ধে শহীদ হন।

ডা. কামরুল ইসলাম: ২ লাখ ১০ হাজার টাকার প্যাকেজ মূল্যে কিডনি প্রতিস্থাপন করা হয় সিকেডি অ্যান্ড ইউরোলজি হাসপাতালে। এই সেবায় ১৫ দিনের এ প্যাকেজের মধ্যে আছে দুজনের অস্ত্রোপচার খরচ (রোগী ও ডোনার), বেড ভাড়া এবং ওষুধ খরচ। এর চেয়ে কম খরচে দেশের বেসরকারি হাসপাতালে কিডনি প্রতিস্থাপন করা সম্ভব নয়। আমাদের পাশের দেশেও কিডনি প্রতিস্থাপনের জন্য খরচ ১৫ লাখ টাকার বেশি। তবে উন্নত বিশ্বের মতোই সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ও ১২ সদস্যের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে এমন কাজ করা হচ্ছে।

স্বাধীনতা যুদ্ধে শহীদ বাবার সম্মানে কিডনি প্রতিস্থাপনের জন্য আমি স্বল্প পারিশ্রমিক নেই। প্রতিস্থাপনের আগে ডায়ালাইসিস প্রয়োজন হলে এই হাসপাতালে ব্যবস্থা রয়েছে। সিকেডি অ্যান্ড ইউরোলজি হাসপাতালে আছে ২২ বেডের ডায়ালাইসিস ইউনিট। মাত্র ১ হাজার ৫০০ টাকায় ডায়ালাইসিসের ব্যবস্থা আছে। আইসিইউ বেডের খরচ ৭ হাজার থেকে ৯ হাজার টাকা।

ডা. কামরুল ইসলাম: চিকিৎসাসেবায় ১৪ বছরের মধ্যে ১ হাজার ২টি কিডনি প্রতিস্থাপন করা হয়েছে। গত এক বছরে করোনার মধ্যে কিডনি প্রতিস্থাপন করা হয়েছে ১৪৯টি। এর মধ্যে মাত্র সাতটি কিডনি কাজ করেনি। সে অনুযায়ী সফলতার হার অনেক ভালো। প্রতিস্থাপনের পর মাত্র ৪ শতাংশ কিডনি বিকল হয়েছে, সফলতা ৯৬ শতাংশ। এ ছাড়া কিডনি প্রতিস্থাপনের পর করোনা আক্রান্ত হয়ে দুজন মারা গেছেন। কিডনি প্রতিস্থাপনের দুই দিন পর হার্ট অ্যাটাক হয়ে রোগীর মৃত্যু হয়েছে। কিডনি প্রতিস্থাপনের পর অনেক বেশি সাবধান হতে হয়। রোগীর এ সময় বাইরের খাবার না খাওয়া ভালো।

প্রতিস্থাপনের পর রোগীর প্রতিনিয়ত ওষুধ খাওয়ানো খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ওষুধ খাওয়ানো যদি এদিক-সেদিক হয়, তাহলে কিডনি বিকল হয়ে যাওয়ার শঙ্কা থাকে। তবে আমরা দেখেছি প্রতিস্থাপনের পর অনেক সময় অর্থনৈতিক কারণে রোগীরা ঠিকমতো ওষুধ খান না। এমন সমস্যা বেশি দেখা দেয় নারী রোগীর ক্ষেত্রে। করোনা পরিস্থিতির কারণে বিদেশি ওষুধ সময়মতো দেশে পৌঁছেনি, এতে কিডনি রোগীর সমস্যা হয়েছে। দীর্ঘ সময় ওষুধ না পাওয়ায় ভালো কিডনি অনেক সময় নষ্ট হওয়ার ঘটনাও ঘটছে।

ডা. কামরুল ইসলাম: করোনার মধ্যে কিডনি প্রতিস্থাপন সাহসী সিদ্ধান্তের কারণে সম্ভব হয়েছে। দেশে যখন প্রথম করোনা মহামারি দেখা দিল, তখন সবাই ঝুঁকির মধ্যে ছিল। কীভাবে এই সংক্রমণ প্রতিরোধ করা যায়, এ বিষয়ে তেমন কারও জানা ছিল না। রোগী ও চিকিৎসক সবাই আতঙ্কে ছিলেন। যে কারণে অনেক চিকিৎসক চেম্বার করা বন্ধ করে দিয়েছিলেন।

করোনার মধ্যে কিডনি প্রতিস্থাপনের সিদ্ধান্ত হয়তো ঝুঁকিপূর্ণ ছিল, তবে রোগীদের সার্বিক বিষয় বিবেচনা করে এই সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে। করোনা প্রতিরোধে দেশে যখন প্রথম লকডাউন শুরু হলো, সেদিন বসে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম কী করব। করোনার মধ্যে আমি ডায়ালাইসিস বন্ধ রাখতে পারব না। ডায়ালাইসিসের কাজে সংশ্লিষ্ট যে স্বাস্থ্যকর্মী, তাদের কাছে জানতে চাইলাম কী করতে চান। স্বাস্থ্যকর্মীরা বলেছিলেন, যদি সুরক্ষা উপকরণ থাকে, আমাদের দায়িত্ব পালন করতে কোনো আপত্তি নেই।

তখন আমি সিদ্ধান্ত নিলাম, ‍কিডনি প্রতিস্থাপন চলমান থাকবে। কারণ কিডনি প্রতিস্থাপন এক মাস পিছিয়ে গেলে ৫০ হাজার টাকা বাড়তি খরচ হবে। সে কারণে আমাদের ১২ সদস্যের টিমের সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নিয়ে করোনার মধ্যে কিডনি প্রতিস্থাপন করা হয়। এভাবে ৩০০ কিডনি প্রতিস্থাপন করা সম্ভব হয়েছে।

ডা. কামরুল ইসলাম: সিকেডি অ্যান্ড ইউরোলজি হাসপাতালটি মূলত গরিব মানুষের সেবা দেয়ার জন্য। আমার হাসপাতালগুলো কিন্তু এভারকেয়ার, স্কয়ার, ল্যাবএইডের মতো না। আমার লক্ষ্য, আমি এখানে চিকিৎসাসেবা ভালো দিব, কিন্তু হাসপাতালের পরিবেশ এত ভালো দিতে পারব না। দেশীয় সব উপকরণ দিয়েই আমার হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়। ভালো চিকিৎসা দেয়া প্রধান লক্ষ্য, দ্বিতীয় লক্ষ্য খরচ কম নেয়া। আমাদের হাসপাতালে ২ লাখ ১০ হাজার টাকায় কিডনি প্রতিস্থাপন করা যায়, সেটি অন্যান্য দেশে ১৫ থেকে ২০ লাখ টাকায় করতে হয়। তারা যে ওষুধ ব্যবহার করে, যে সুতা ব্যবহার করে, এমনকি তারা যে যন্ত্রপাতি ব্যবহার করে, আমরাও তা-ই ব্যবহার করি। আমাদের ফলাফল ও তাদের ফলাফল একই। আমাদের লক্ষ্য গরিব ও অসহায় রোগীদের অল্প খরচে কিডনি প্রতিস্থাপন। আমরা তা করে যাচ্ছি। এটাই আমাদের সাফল্য।

ডা. কামরুল ইসলাম: এ পর্যন্ত যে ১ হাজার কিডনি প্রতিস্থাপন করা হয়েছে, সব রোগীর ফলোআপ পরীক্ষা বিনা মূল্যে করা হয়েছে। প্রতি মাসে ৫০০ থেকে ৬০০ রোগী আসেন ফলোআপ পরীক্ষার জন্য। তাদের সবার ফলোআপ বিনা মূল্যে করানো হয়। রোগীপ্রতি পরীক্ষার খরচ আসে ৫০০ টাকা থেকে ৬০০ টাকা। এমনকি রিপোর্ট দেখতে কোনো ফি নেয়া হয় না। এই ফলোআপের কারণে রোগীর কিডনি অনেক দিন সুস্থ থাকে। যদি ফলোআপ পরীক্ষার জন্য টাকা নেয়া হতো, তাহলে রোগীদের বড় একটি অংশ প্রতিস্থাপনের পর ফলোআপ পরীক্ষা করতে আসত না। তাতে অনেকেরই কিডনি নষ্ট হওয়ার শঙ্কা থাকত।

আগামী দিনে কিডনিদাতাদের মধ্যে কিডনি রোগ দেখা দিলে তাদেরও ফ্রি চিকিৎসা দেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে। এ ছাড়া যারা কিডনিদাতা তাদের এক বছরের কিডনি ফলোআপ পরীক্ষা ফ্রি করা হবে। এমনকি তাদের যদি কিডনি প্রতিস্থাপনের প্রয়োজন হয়, সেটিও ফ্রি করার পরিকল্পনা রয়েছে।

ডা. কামরুল ইসলাম: দেশে কিডনি রোগে আক্রান্ত হওয়ার পেছনে তিন প্রধান রোগ রয়েছে: ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ ও ইউরিন সমস্যার। এ ছাড়া অনেক কারণে কিডনি রোগ দেখা দিতে পারে। বাচ্চাদের জন্মগত ত্রুটি রয়েছে। বাইরের পচা-বাসি খাবার খেলেও এই রোগ দেখা দিতে পারে। কিডনি রোগ প্রতিরোধে সচেতনতা সবচেয়ে বেশি ভূমিকা পালন করে।


এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

প্রিয় পাঠক, স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন, nogorkhobor@gmail.com ঠিকানায়। অথবা যুক্ত হতে পারেন NogorKhobor আমাদের ফেসবুক পেজে। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

এই বিভাগের আরও খবর

আমাদের লাইক পেজ

Facebook Pagelike Widget