সারাদেশ

৫০ কোটি টাকার পুরাতন শীত বস্ত্র বিক্রির আশা ব্যবসায়ীদের

নগর খবর ডেস্ক : চলে এসেছে শীত। রাত থেকে দেখা মিলছে ঘন কুয়াশার। ঘাসের ডগায়, ধানের পাতায় জমছে শিশির বিন্দু। সকাল হলেই সূর্যোদয়ের মধ্য দিয়ে মিষ্টি রোদ আর সবুজ ঘাসের পাতার ওপর শিশির বিন্দু জানিয়ে দিচ্ছে শীতের বার্তা। এদিকে কয়েক বছরের চেয়ে নীলফামারীর সৈয়দপুরে শীত মৌসুমে শীতবস্ত্রের এবার ভালোই বেচাকেনা শুরু হয়েছে। এ বছর বিক্রি ৫০ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে বলে আশা করছেন ব্যবসায়ীরা।

 

শীতের আগমনে সৈয়দপুর থেকে বিভিন্ন জেলায় যাচ্ছে পুরাতন শীতবস্ত্র। চট্টগ্রাম থেকে ট্রাক ও পিকআপে আসা পোশাক দোকানে ও গুদামে জমা হয়। পাইকারি ও খুচরা ক্রেতারা দোকান ঘুরে দরদাম করে পুরাতন এসব শীত বস্ত্র কিনে নিয়ে যায়। দিনে লাখ লাখ টাকার বেচাকেনা হয় বলে জানান ব্যবসায়ীরা। অক্টোবর মাসে কেনাবেচা শুরু হয়ে চলে জানুয়ারি পর্যন্ত।

 

বস্ত্র মালিক সমিতির আহ্বায়ক আব্দুর রাজ্জাক গণমাধ্যমে জানান, ছয়জন ব্যবসায়ীর এলসি করা আছে। সৈয়দপুরে তারা আমদানি-রপ্তানি করেন। অন্যরা চট্টগ্রাম ও ঢাকা থেকে পাইকারি কেনেন। শীতে প্রায় ৫০ কোটি টাকার কেনাবেচা হয়। এবারও হবে আশা করি।

ব্যবসায়ীরা জানান, এখানে জ্যাকেটের বেল পাইকারি বিক্রি হয় ৮ হাজার থেকে ১৫ হাজার টাকায়। এছাড়া কার্ডিগান ৬ হাজার থেকে ১২ হাজার টাকা, হুডি ৩ হাজার থেকে ৫ হাজার টাকা, মাফলার ২ হাজার থেকে ৩ হাজার টাকা, টুপি দেড় হাজার থেকে ২ হাজার টাকা ও কম্বল বিক্রি হয় ১২ হাজার থেকে ২০ হাজার টাকায়। বেলভেদে ৩০০ থেকে দেড় হাজার টাকা লাভ করেন পাইকাররা।

কাপড় ব্যবসায়ী সালাউদ্দিন ক্লথ স্টোরের মালিক মোহাম্মদ সালাউদ্দিন গণমাধ্যমে বলেন, গাইডের কাপড় তাইওয়ান, জাপান ও কোরিয়া থেকে বেশি আসে। চট্টগ্রাম থেকে এসব কিনে স্বল্প লাভে বিক্রি করি। পাইকারি ও খুচরা ব্যবসায়ীরা বাকি ও নগদে কিনে নেন। দুই বছর করোনার কারণে লাভের মুখ দেখিনি। এবার লাভের আশা করছি।

 

খুচরা মৌসুমী কাপড় ব্যবসায়ী আকতার হোসেন গণমাধ্যমে বলেন, শীতের সময়ে শীতবস্ত্র বিক্রি করে বাড়তি আয় হয়। অন্য সময় হোটেলে কাজ করি এবং রিকশা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করি। শীতে মহাজনের কাছ থেকে শীতবস্ত্র নিয়ে রেললাইনের পাশে বিক্রি করি। স্ত্রী, দুই ছেলে, এক মেয়ে নিয়ে সংসার ভালোভাবেই চলে যায়। বাড়িভাড়া ও দোকানের বাকিও পরিশোধ হয়।

 

আকতার হোসেনের মতো কয়েক শত মৌসুমী ব্যবসায়ী নীলফামারীর সৈয়দপুরে রেললাইনসহ বিভিন্ন হাট-বাজারে শীতবস্ত্র বিক্রি করেন। উত্তরাঞ্চলের মধ্যে বেশ বড় পাইকারি মোকাম গড়ে উঠেছে এ এলাকায়। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, কয়েকটি জেলায় শীতের তীব্রতা বেশি থাকে। ফলে গরম কাপড়ের চাহিদা বেশি। রংপুর বিভাগে সৈয়দপুর মাঝামাঝি স্থানে ও যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো হওয়ায় ব্যবসাও জমাজমাট।

 

জয়পুরহাট থেকে আসা নুরুল হুদা গণমাধ্যমে বলেন, এবার শীতবস্ত্রের দাম তেমন বাড়েনি। সৈয়দপুরে দাম কম। জ্যাকেট, মাফলার ও টুপি কিনে ট্রেনে এলাকায় নিয়ে যাব।’ স্কুল শিক্ষক কোয়েলিয়া বিশ্বাস বলেন, ‘এখানে কম দামে পোশাক পাওয়া যায়, প্রতি বছর পরিবারের সবার জন্য গরম কাপড় কিনতে আসি।

 

হাজী ডিমলা বস্ত্রালয়ের মালিক আব্দুল্লাহ আল মামুন গণমাধ্যমে জানান, শীতে বেচাকেনা বেশি হলেও বাকি দিতে হয়। দিন দিন ব্যবসা বড় হচ্ছে। মৌসুমে অন্তত এক হাজার মানুষের কর্মসংস্থান হয়েছে। তবে সরকারি সুযোগ-সুবিধা নেই। এনজিওর ঋণ নিয়ে অনেকে সর্বস্বান্ত হয়েছেন বলে জানান তিনি।

 

পাইকারি ব্যবসায়ী শের আলী গণমাধ্যমে বলেন, শার্ট, প্যান্ট, গেঞ্জিসহ নানান পোশাক সারা বছর বিক্রি হয়। বেশি বিক্রি হয় রেললাইনের পাশে। তবে ঝুঁকি ও উচ্ছেদ আতঙ্ক নিয়ে ব্যবসা করতে হচ্ছে। হকার্স মার্কেট করে দিলে ব্যবসার আরও প্রসার ঘটবে।

 

সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফয়সাল রায়হান ঢাকা পোস্টকে বলেন, রেললাইনের ওপর যারা ব্যবসা করেন, তাদের জন্য জায়গা খোঁজা হচ্ছে।

 

নীলফামারী জেলা প্রশাসক পঙ্কজ ঘোষ  গণমাধ্যমে  জানান, তারা আবেদন করলে সহজ শর্তে ঋণের ব্যবস্থা করতে জেলা প্রশাসনের পক্ষে সহায়তা করা হবে।

Back to top button